বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা টেস্ট সিরিজ

১৯৯ রানের দুর্ভাগা রেকর্ডে ম্যাথিউস, ৩৯৭ রানে শেষ লঙ্কানরা

প্রকাশ : ১৬ মে ২০২২, ২০:৪৬

সাহস ডেস্ক

প্রথম দিনে তাইজুলের বলে স্লিপে ক্যাচ উঠিয়ে দিয়েছিলেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস, কিন্তু তার ক্যাচটি ছেড়ে দেন মাহমুদুল হাসান জয়। তখন ম্যাথিউসের ব্যাক্তিগত রান ছিল ৬৯। জীবন ফিরে পেয়ে নিজেকে স্থির করে দারুণ এক সেঞ্চুরি তুলে নেন এই অভিজ্ঞ ব্যাটার। তার সেঞ্চুরিতে এগিয়ে থেকে প্রথম দিন শেষ করেছিল শ্রীলঙ্কা। দ্বিতীয় দিনেও দেখিয়েছেন তার স্থিরতা। তবে এমনি সময়ে স্থিরতা হারালেন যখন জীবনে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির একটি রেকর্ডে পৌঁছাবেন। কিন্তু তা আর হলো না। নাঈমের বলে সাকিবের হাতে ক্যাচ দিয়ে ১৯৯ রানে ফিরেন ম্যাথিউস।

আগের বলটিতে থার্ড ম্যানে ফেলে দুই রান নিয়ে ১৯৯ রানে পৌঁছেছিলেন ম্যাথিউস। ৩৯৭ বল লড়াই শেষে পূর্ণাতার কিনারে ছিলেন তিনি। ১৫৩তম ওভারে নাঈম হাসানের শেষ বলটা ছিল নিরিহ। সে বলটা তুলে মারতে গিয়ে টাইমিং করতে পারেননি ঠিকঠাক। শর্ট মিড উইকেটে সাকিব আল হাসানের হাতে ধরা পড়েন ম্যাথিউস। ৩৯৭ বলে ১৯ চার ও ১ ছক্কায় ১৯৯ রান করেন। আর ১ রান করতে পারলে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরিটা পেয়ে যেতেন। লম্বা একটা সময় যিনি চোয়ালবদ্ধ দৃঢ়তা দেখালেন, সেই তিনি ডাবল সেঞ্চুরির কিনারে এসে হুট করে হয়ে পড়লেন অস্থির। এই অস্থিরতা হৃদয়ভাঙার আক্ষেপে পুড়াল তাকে। চট্টগ্রামে প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিন এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ‘মাইলফলক’ই সঙ্গী হলো লঙ্কান এই অলরাউন্ডারের।

ম্যাথিউস ১৯৯ রানে থাকায় এবং ওভারের শেষ বল হওয়ায় ক্লোজ ফিল্ডারের সংখ্যা বাড়িয়েছিলেন মুমিনুল হক। সেই চাপ থেকে উড়িয়ে মারার পরিকল্পনা করে থাকবেন এই ব্যাটার। আর সে কাজটাই করতে গিয়ে ধরা পরলেন তিনি ম্যাথিউস। আউট হয়ে যান ১৯৯ রানে। শ্রীলঙ্কাও থেমে যায় ৩৯৭ রানে। বাংলাদেশের মাটিতে ১৯৯ রানে আউট হওয়া প্রথম কোন দুর্ভাগা টেস্ট ব্যাটসম্যান তিনি। টেস্ট ইতিহাসে ১৯৯ রানে আউট হওয়া দ্বাদশ ব্যক্তি ম্যাথিউস। বাংলাদেশের বিপক্ষে এমনটা ঘটল দ্বিতীয়বার। এর আগে ২০১৭ সালে পচেফস্ট্রমে ডিন এলগার আউট হয়েছিলেন ১৯৯ রানে।

১৭৮ রান নিয়ে চা-বিরতিতে গিয়েছিলেন ম্যাথিউস। শেষ দুই ব্যাটসম্যানকে নিয়ে দলের চারশো আর তার দুশো দুটোই যেন ছিল নাগালে। কোন রকম ঝুঁকি না নিয়ে সেদিকেই এগুচ্ছিলেন লঙ্কান অভিজ্ঞ তারকা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর স্নায়ুচাপ ধরে রাখতে পারলেন। বাউন্ডারি দিয়ে নিজের দ্বাদশ সেঞ্চুরিটাকে দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরিতে রূপ দিতে ইতি টানেন এই ডানহাতি। তবে তার ডাবল সেঞ্চুরির আশা ফিকে হয়ে গিয়েছিল লাঞ্চের পর পরই। লাঞ্চের ঠিক আগে নাঈম জোড়া উইকেট নিয়ে দলকে খেলায় ফেরান। লাঞ্চের পর সাকিব পর পর দুই বলে ফিরিয়ে দেন রমেশ মেন্ডিস আর লাসিথ এম্বুলদেনিয়াকে।

৩২৮ রানে ৮ উইকেট হারিয়ে বসে লঙ্কানরা। তখন ১৪৮ রানে ছিলেন ম্যাথিউস। এরপর বিশ্ব ফার্নান্দোকে নিয়ে চলতে থাকে তার প্রতিরোধ। সাকিবদের অনেক চেষ্টা নসাৎ করে ছুটে চলে তাদের পথচলা। সাকিবের ঝুলন্ত বল আর খালেদ আহমেদ-শরিফুল ইসলামদের বাউন্সার ডাক করেছেন একের পর এক। শরিফুলের এক বাউন্সারে আঘাত পেয়ে চা-বিরতির পর অবসরে গিয়েছিলেন বিশ্ব। তার আগে নবম উইকেট জুটিতে আসে ১৪৭ বলে ৪৭ রানের জুটি। বিশ্বের অবসরের সময়টায় আসিতা ফার্নান্দোকে নিয়েও ৪৭ বল খেলেন ম্যাথিউস। এই জুটি যোগ করে ১৫ রান। বিশ্ব ফেরার পর আরও ২৫ বলে ৭ রানের জুটি আসে। তারপরই ম্যাথিউসের ওই তালগোল পাকানো। এবং চরম আক্ষেপ।

সোমবার (১৬ মে) চট্টগ্রামে প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ম্যাথিউসের আউটের মধ্যে দিয়ে গুটিয়ে গেল শ্রীলঙ্কা দলের প্রথম ইনিংস। ৩৯৭ রানে থামল সফরকারীরা। ম্যাথিউসকে আউট করার মধ্য দিয়ে নিজের ৬ষ্ঠ উইকেট নেন লম্বা সময় পর টেস্টে ফেরা নাঈম হাসান। ইনিংস শেষে তার ফিগার দাঁড়ায় ১০৬ রানে ৬ উইকেট। সাকিব নিয়েছেন ৩টি, বাকি ১টি তাইজুলের।

দ্বিতীয় দিনের কিছু সময় বাকি থাকতে ৩৯৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাটে নামে বাংলাদেশ দল। ওপেন জুটিতে দুর্দান্ত শুরু করেছিল মাহমুদুল হাসান জয় ও তামিম ইকবাল। বিনা উইকেটে ৭৬ রানের জুটি গড়ে এদিন শেষ করেন তারা। জয় ৫ চারে ৩১ রান ও তামিম ৪ চারে ৩৫ রান নিয়ে অপরাজিত আছেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংস:  ১৫৩ ওভারে ৩৯৭ (ওসাদা ৩, দিমুথ ৯, মেন্ডিস ৫৪, ম্যাথিউস ১৯৯, ধনঞ্জয়া ৬, চান্দিমাল ৬৬, ডিকভেলা ৩, রমেশ ১, এম্বুলদেনিয়া ০, বিশ্ব ১৭*, আসিতা ১। শরিফুল ০/৫৫, খালেদ ০/৬৬, নাঈম ৬/১০৫, তাইজুল ১/১০৭, সাকিব ৩/৬০)

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
আপনি কী মনে করেন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পদক্ষেপ সন্তোষজনক?