x

এইমাত্র

  •  চলে গেলেন প্রখ্যাত কবি শঙ্খ ঘোষ
  •  ভার্চুয়াল কোর্টের ছয় কর্মদিবসে জামিন পেলেন ১২ হাজার ২৫৮ হাজতি
  •  লকডাউনে অসচ্ছল মানুষকে সহায়তায় বরাদ্দ সাড়ে ১০ কোটি টাকা
  •  লকডাউনে থাকছে যেসব বিধিনিষেধ

মেসিকে ছাড়াই জয়ের রথে বার্সেলোনা

প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১৪:০৩

সাহস ডেস্ক

সুপার কাপের ফাইনালে লাল কার্ড দেখায় দুই ম্যাচ নিষিদ্ধ হয়েছেন বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড লিওনেল মেসি। তবুও মেসিকে ছাড়াই ভিন্ন তিন টুর্নামেন্টে জয় পেয়েছে কাতালানরা। স্প্যানিশ সুপার কাপ, কোপা দেল রে এবং লা লিগা। ভিন্ন এই তিন টুর্নামেন্টের জয়ে মেসিনির্ভরতা থেকে বেরিয়ে আসার বার্তাই দিয়েছে বার্সেলোনা। তবে এই নিয়ে লিগে টানা চতুর্থ জয় ও সবমিলিয়ে টানা ৯ ম্যাচে অপরাজিত আছে কাতালানরা।

স্প্যানিশ সুপার কাপ ও কোপা দেল রে’র পর গতরাতে স্প্যানিশ লা লিগায় ডি ইয়ং ও রিকি পুচের গোলে স্বাগতিক এলচেকে হারিয়ে টানা জয় পেয়েছে মেসিবিহীন বার্সেলোনা। এই লিগে দুইয়ে থাকা রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে পয়েন্ট ব্যবধান আবার ৩-এ নামিয়ে আনলো বার্সা।

রবিবার (২৪ জানুয়ারি) স্তাদিও ম্যানুয়েল মার্টিনেজ ভালেরো স্টেডিয়ামে এলচেকে ২-০ গোলে হারিয়েছে রোনাল্ড কোম্যানের শিষ্যরা।

এদিন এলচের মাঠে ম্যাচের শুরু থেকেই দাপট দেখিয়ে খেলছে বার্সাবাহিনী। কিন্তু ওসমান দেম্বেলে, আঁতোয়া গ্রিজমান ও মার্টিন ব্রাথওয়েটরা একের পর এক সুযোগ পেয়েছেন, আর আক্রমণের এই ত্রয়ী সেসব সুযোগ হেলায় হারিয়েছেন। সুযোগ নষ্টের এ খেলায় বুসকেতস, আরাউহোরাও যোগ দিয়েছিলেন। তাই বার্সার গোল পেতে সময় লেগেছে ৩৯ মিনিট।

ম্যাচের ৩৯ মিনিটে প্রতিপক্ষের ভুলে পাওয়া এই গোলটি আসে ডি ইয়ংয়ের পা থেকে। বাঁ প্রান্ত থেকে ব্রাথওয়েটের ক্রস দুই এলচে ডিফেন্ডারের মাঝেই খুঁজে নিয়েছিলেন গ্রিজমান। গোলরক্ষক ও দুই ডিফেন্ডারের মাঝেই আলতো ছোঁয়ায় বলটা জালের দিকে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন ফ্রেঞ্চ ফরোয়ার্ড। বলটা নিশ্চিতভাবেই গোল হচ্ছিল, গোললাইন পার হওয়ার আগে তাতে পা লাগিয়ে শুধু গোলদাতার নামটা বদলে দিয়েছেন ডি ইয়ং।

তার পরের মিনিটে গোল শোধের সুযোগ পেয়েছিলেন এলচের জোসান। কিন্তু টের স্টেগেনের গায়ের দিকে মারা সে শট কোনো ভয় জাগায়নি। তবে প্রথমার্ধের বাকি সময়ে আর কোনো গোলের সুযোগ তৈরি করতে পারেনি দুইদলই। অবশেষে এই এক গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় বার্সেলোনা।

বিরতি থেকে ফিরে এসে বার্সার দাপট সহ্য করা এলচে আক্রমণে মন দিয়েছে দ্বিতীয়ার্ধে। ৫৫ মিনিটে বার্সা গোলরক্ষকে একা পেয়েও গিয়েছিলেন এমিলিয়ানো রিগোনি। কিন্তু টের স্টেগেন শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত স্নায়ুর লড়াইয়ে হার মানেননি। রিগোনির শট পা দিয়ে ঠেকিয়ে দিয়েছেন। প্রতি আক্রমণে ওঠা বার্সা ব্যবধান বাড়িয়ে ফেলার সুযোগ পেয়েছিল। দেম্বেলের দারুণ শট ঝাঁপিয়ে ঠেকিয়ে দিয়েছেন এলচে গোলরক্ষক বাদিয়া।

এরপর ম্যাচের ৮৭ মিনিটে পেদ্রির বদলি হিসেবে নামেন রিকি পুচ, নেমেই ব্যাবধান দ্বিগুণ করেন তিনি। ম্যাচের ৮৯ মিনিটে ক্লান্ত এলচের রক্ষণকে দর্শক বানিয়ে বক্সে ঢুকে পড়েছিলেন ডি ইয়ং। বাঁ পোস্টের কাছে ভিড় করা এলচে রক্ষণকে বোকা বানিয়ে ডি ইয়ং ক্রস করেন দূরের পোস্টে। মাত্রই মাঠে নামা রিকি পুচের হেড আটকানোর জন্য লাফানোর কথা মাথায় আসেনি কারও। অবশেষে বলটি জালে জড়ায়। পরে বাকি সময় আর কোনো গোল না হলে এই ২-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে কোম্যানের শিষ্যরা।

এই জয়ে ১৯ ম্যাচে ৩৭ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তৃতীয়তে উঠে এসেছে বার্সেলোনা। সমান ম্যাচে ৪০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয়তে আছে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদ। দুই ম্যাচ কম খেলে অর্থাৎ ১৭ ম্যাচে ৪৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে আছে অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
আপনি কী মনে করেন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পদক্ষেপ সন্তোষজনক?