আফগান স্পিনের বিষে জর্জরিত টপ ওর্ডার

চট্টগ্রাম টেস্ট

প্রকাশ : ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৪:৩৭

চা খাওয়ার বিরতিতে গিয়েছে সাকিব বাহিনী। কিন্তু চায়ের সাথে আড্ডাটা ঠিক হয়তো জমবে না। কেননা, দেড় সেশনেই বাংলাদেশের নেই ৫ উইকেট।

আফগানিস্তানের প্রথম ইনিংসের ৩৪২ রান পাহাড়সমই হয়েছিল তাদের বোলিং লাইন আপের কারণে। রশীদ, নবি আর জহিরের সাথে পেসার আহমেদজাই। বাংলাদেশের ইনিংসের আহমেদজাইয়ের প্রথম স্পেল ছিল আগুনে। তুলে নিয়েছেন ওপেনার সাদমান ইসলামের উইকেটও। সেখানে আফগানদের ঠেকাতে কোনো পেসারই দলে নিল না বাংলাদেশ। পার্ট টাইমার সৌম্যকে দিয়ে দায় সারানো কয়েকটা ওভার কেবল করানো হলো। 

স্পিন বান্ধব পিচে এগিয়ে থাকতেই দলে জায়গা পেলো ফ্রন্ট লাইনের সব স্পিনার। তাইজুল, সাকিব থেকে নাঈম, মিরাজ আর মাহমুদুল্লাহ, মুমিনুল। হাত ঘুরিয়েছেন সবাই। আফগানদের অলআউট করতে পারলেও রান দমিয়ে রাখা গেলো না।

ব্যাট হাতে তামিমের না থাকার সুবাদে ওপেনিংয়ে সাদমান-সৌম্য। সাদমান আউট হয়ে ফিরলে লিটনকে নিয়ে রক্ষণাত্মক ভঙ্গিমায় ব্যাট চালিয়েছেন সৌম্য। কিন্তু রক্ষণাত্মকভাবে খেলতে খেলতেই ফিরলেন এলবির ফাঁদে পড়ে। লিটন কিছু রান পেলেও বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি পিচে। ৩৩ রান করে বোল্ড হয়ে ফিরলেন আফগান কাপ্তান রশীদের বলে। 

বিশ্বকাপে ধারাবাহিক ভাবে খেলে আসা সাকিব-মুশফিকদের উপর বিশ্বাস ছিল বলেই হয়তো টেস্টে ভালোভাবে বেঁচে থাকার আশা ছিল দর্শকদের। কিন্তু আফগান স্পিন বিষে প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন তারাও।

এই টেস্টে জয়ের আশা বাঁচিয়ে রাখতে হলে করতে হবে প্রচুর রান। সেখানে পিচে আছেন মুমিনুল। চট্টগ্রামে যার ব্যাট হেসেছে অনেকগুলো ইনিংসে। চা পানের পর তিনি হয়তো নামবেন মাহমুদুল্লাহকে সঙ্গে নিয়ে। আফগান বোলারদের সাথে পেরে উঠতে তাদের দিতে হবে চরম পরীক্ষাও।  

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
আপনি কী মনে করেন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পদক্ষেপ সন্তোষজনক?