x

এইমাত্র

  •  পাঁচজন বিশিষ্ট নারীকে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদক-২০২২ প্রদান করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
  •  ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য রাজস্থানে মন্দিরে পদদলিত হয়ে ৩ জন নিহত হয়েছেন
  •  জ্বালানি তেল ডিজেল, পেট্রল ও অকটেনের মূল্যবৃদ্ধির প্রজ্ঞাপনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট
  •  তাইওয়ানের পাশে সামরিক মহড়া অব্যাহত রাখবে চীন
  •  কওমি মাদ্রাসার শিক্ষা বোর্ডগুলোর সঙ্গে পূর্বনির্ধারিত ১০ আগস্টের বৈঠক স্থগিত করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

নৌকা বিক্রির ধুম পড়েছে ঐতিহ্যবাহী রামচন্দ্রপুর ও ডুমুরিয়ার হাটে

প্রকাশ : ১২ জুন ২০২২, ১২:৪২

সাহস ডেস্ক
ছবি সংগৃহীত

মুরাদনগর উপজেলায়  রামচন্দ্রপুর ও ডুমুরিয়া বাজারে বর্ষার শুরুতেই  নৌকা বিক্রির ধুম পড়েছে। শত বছরের পুরোনো রামচন্দ্রপুর ও ডুমুরিয়ার নৌকা বিক্রির হাট। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে  এ অঞ্চলের মানুষ চলাচল ও পণ্য পরিবহনের জন্য নির্ভরযোগ্য বাহন হিসেবে খুঁজে নেন নৌকা। 

নদীতে পাল তোলা নৌকা চোখে কম পড়লেও ডিঙি নৌকা গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য  ধরে রেখেছে। রামচন্দ্রপুর বড় বাজার নৌকার হাটের জন্য বেশ প্রসিদ্ধ। গত বছরের তুলনায় নৌকার মূল্য একটু বেশি কাঠের দাম বেশি হওয়ার কারণে । সকল প্রতিকূলতা ছাপিয়ে নৌকা বিক্রি ধুম পড়েছে রামচন্দ্রপুর ও ডুমুরিয়া বাজারে।

উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম এই ডিঙি নৌকা। কৃষকদের গবাদি পশুর জন্য ঘাস কাটা, বর্ষা মৌসুমে চলাচল, জীবন জীবিকা ও দৈনন্দিন নানা রকম কাজকর্মে এই নৌকার ব্যবহার হয়ে থাকে। বর্ষায় এই ডিঙি নৌকায় পণ্যদ্রব্য সাজিয়ে ফেরিওয়ালারা তাদের বিভিন্ন পণ্য নিয়ে গ্রামে গ্রামে ফেরি করে বেড়ায়। মুরাদনগরসহ পার্শ্ববর্তী ছয় উপজেলার কৃষিজীবী জনগোষ্ঠী জীবন-জীবিকার প্রয়োজনে এ ডিঙি নৌকার ওপর নির্ভরশীল থাকেন। 

বর্ষা মৌসুমে কাঠ মিস্ত্রিদের তেমন কাজ না থাকায় মুরাদনগর উপজেলার কৈজুরী, পাঁচকিত্তা ও তিতাস উপজেলার মেলামচর গ্রামসহ বিভিন্ন স্থানে কোষা নৌকা তৈরি করে।

সাহস২৪.কম/এবি

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত