x

এইমাত্র

  •  করোনায় রেকর্ড ৩৪ বিলিয়ন ডলারের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ
  •  করোনায় সারা বিশ্বে মৃতের সংখ্যা ৩ লাখ ৮৮ হাজার ২৪৪ জন
  •  করোনায় বিশ্বজুড়ে আক্রান্ত ৬৫ লাখের অধিক, সুস্থ হয়েছেন ৩১ লাখেরও বেশী
  •  বাংলামোটরে বাসচাপায় প্রাণ গেল দুজনের
  •  করোনাভাইরাসঃ বাংলাদেশে আরও ৩৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৪২৩ জনের

১ লাখ ১,১১৭ কোটি টাকার ১৮টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর

প্রকাশ : ১৫ মে ২০২০, ১২:৫৫

সাহস ডেস্ক

মহামারি করোনাভাইরাসের সংকটের কারণে দেশের বিভিন্ন খাতে মোট প্রায় ১ লাখ ১ হাজার ১১৭ কোটি টাকার ১৮টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সর্বশেষ অষ্টাদশতম উদ্দীপনা প্যাকেজে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক, প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক, কর্মসংস্থান ব্যাংক এবং পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশনকে ২ হাজার কোটি টাকার তহবিল প্রদানের ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

এ পর্যন্ত সব মিলিয়ে মোট ১১ দশমিক ৯০ বিলিয়ন ডলারে ১৮টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করা হল, যা দেশের মোট জিডিপির ৩ দশমিক ৬ শতাংশ।

এই ১৮ টি প্রণোদনা প্যাকেজ ছাড়াও এর আগে প্রধানমন্ত্রী ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প ও সেবা খাতের সংস্থাগুলোর জন্য ৩০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন। এর পরে তিনি ক্ষুদ্র (কুটির শিল্প সহ) এবং মাঝারি শিল্পের চলতি মূলধন সরবরাহের জন্য ২০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত অন্যান্য প্রণোদনা প্যাকেজগুলোর মধ্যে রয়েছে- রফতানিমুখী শিল্পের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার বিশেষ তহবিল, প্রবর্তিত রফতানি উন্নয়ন তহবিল (ইডিএফ) এর সুবিধাগুলো বাড়ানোর জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের ১২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকা, ৫ হাজার কোটি টাকা প্রাক-শিপমেন্ট ক্রেডিট পুনরায় অর্থ প্রকল্পের জন্য, ১০০ কোটি টাকা, চিকিৎসক, নার্স এবং স্বাস্থ্যে জন্য বিশেষ সম্মানী ভাতা হিসেবে প্রদানের জন্য, ৭৫০ কোটি টাকা স্বাস্থ্য বীমা এবং জীবন বীমা এবং ২ হাজার ৫০৩ কোটি টাকার খাদ্য সামগ্রী বিনামূল্যে বিতরণের এই প্রণোদনা প্যাকেজ।

কৃষিতে ভর্তুকি ৯ হাজার ৫০০ কোটি টাকা, কৃষি পুনঃতফসিল প্রকল্প ৫ হাজার কোটি টাকা। স্বল্প আয়ের কৃষক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য পুনরায় ফিনান্সিং স্কিম ৩ হাজার কোটি টাকা, ১০ টাকা কেজি চাল বিক্রি বাবদ ২৫১ কোটি টাকা, নির্দিষ্ট কিছু সম্প্রদায়গুলোর মধ্যে নগদ বিতরণ ১ হাজার ২৫৮ কোটি টাকা। ভাতা কর্মসূচির আওতা বৃদ্ধি ৮১১ কোটি টাকার, গৃহহীন মানুষের জন্য ঘর তৈরি ২ হাজার ১৩০ কোটি টাকা। বোরো ধান/চাল ক্রয়ের কার্যক্রম (অতিরিক্ত ২ লাখ টন) ৮৬০ কোটি টাকার এবং কৃষিতে যান্ত্রিকীকরণ ২০০ কোটি টাকা।

সূত্র: বাসস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত