x

এইমাত্র

  •  গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় নতুন সংক্রমিত ৩০২৭ জন, মৃত ৫৫ জন
  •  বান্দরবানে জেএসএস’র দুই গ্রু‌পের গোলাগু‌লিতে নিহত ৬
  •  মহামারি করোনাভাইরাসে বিশ্বব্যাপী মৃত্যু ৫ লাখ ৪০ হাজার, আক্রান্ত ১ কোটি ১৭ লাখেরও বেশি
  •  ভারতে মৃত্যু ২০ হাজারের বেশি, আক্রান্ত ৭ লাখ পার
  •  সারাদেশে করোনার উপসর্গ নিয়ে গত ২৪ ঘন্টায় ২৬ জনের মৃত্যু

করোনাভাইরাসের প্রভাব খুলনার অর্থনীতিতে

প্রকাশ : ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩:১২

সাহস ডেস্ক

চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের প্রভাবে দেশটির আমদানি-রপ্তানি বাধাগ্রস্থ হওয়ার পাশাপাশি ভিন্নদেশের বাজারেও এর প্রভাব পড়ছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় প্রায় সব পণ্যই বাংলাদেশে রপ্তানি করে দেশটি। তবে, সম্প্রতি করোনাভাইরাসের আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ায় সারাদেশের ন্যায় খুলনার অর্থনীতিতে বড় হুমকি আসতে পারে বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা।

দেশের দক্ষিণাঞ্চলের ব্যবসায়ীরা বলছেন, চীনা পণ্য আমদানি কমে যাওয়ায় এরই মধ্যে বিভিন্ন পণ্যের দাম বেড়ে গেছে এবং এখন চীন থেকে আমদানি করা কাঁচামালের উপর নির্ভরশীল কারখানা বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম দেখা দিয়েছে।

খুলনা চেম্বার অফ কমার্সের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পরে চীন থেকে সব ধরনের পণ্য আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ব্যবসায়ীরা নতুন পণ্য অর্ডার করতে পারছেন না। দুমাস আগে খোলা লেটার অফ ক্রেডিট (এলসি) বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমদানিকৃত পণ্যের সঙ্কট তৈরি হয়েছে।

কুঁচে ও কাঁকড়া ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক বাসুদেব মণ্ডল জানিয়েছেন, দক্ষিণাঞ্চলের ব্যবসায়ীরা ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে ৪১৬.২ মিলিয়ন মেট্রিক টন কুঁচে এবং ৩৪ কোটি ৬৪ লাখ টাকার কাঁকড়া রপ্তানি করেছে।

তবে, ২৬ জানুয়ারি থেকে চীনে কুঁচে এবং কাঁকড়া রপ্তানি বন্ধ রয়েছে। খুলনার রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর তথ্যমতে, বাংলাদেশ প্রতিবছর ৭০০ কোটি টাকার কাঁকড়া ও কুঁচে রপ্তানি করে। এর মধ্যে নব্বই শতাংশ চীনে যায়।

এদিকে, দেশের দক্ষিণাঞ্চলেও চীনা পণ্যের সঙ্কট দেখা দিয়েছে। খুলনার বিভিন্ন বাজারে ব্যবসায়ীরা ইতোমধ্যে চীনা পণ্যের দাম ১০-২০ শতাংশ বাড়িয়ে দিয়েছে। ওই এলাকার কারখানার মালিকরা জানিয়েছেন, কয়েকটি কারখানায় এরই মধ্যে উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে। এসব কারখানার ৭০ শতাংশ কাঁচামাল চীন থেকে আনা হত।

খুলনার ইয়াসিন আলী নামের এক ইলেকট্রনিক পণ্য আমদানিকারক বলেন, চীনে ইলেকট্রনিক পণ্যের উৎপাদন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে এবং কবে থেকে তা পুনরায় চালু হবে এ নিয়ে কোনো আশ্বাসও পাওয়া যায়নি।

আলী বলেন, টিভি, কম্পিউটার যন্ত্রাংশ, রিমোট এবং চীনের অন্যান্য খুচরা পণ্যের দাম ১০-২০ শতাংশ বেড়ে গেছে।

আগমী ১৫ দিনের মধ্যে যদি এ পরিস্থিতির উন্নতি না হয় তবে চীনা সকল পণ্যের সংকট আরও তীব্র হবে, যোগ করেন তিনি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত