x

এইমাত্র

  •  বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে সারাদেশে আলোকসজ্জা বন্ধ
  •  দলীয় প্রধানের পদ ছাড়লেন বরিস জনসন, ছাড়বেন প্রধানমন্ত্রিত্বও

কুমিল্লায় নাশকতার মামলা, খালেদা জিয়ার স্থায়ী জামিন

প্রকাশ : ২৪ মে ২০২২, ১৯:৪০

সাহস ডেস্ক

কুমিল্লায় নাশকতার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে স্থায়ী জামিন দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার (২৪ মে) বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘কুমিল্লায় নাশকতার মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আগেই জামিনে ছিলেন। মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই স্থায়ী জামিনের জন্য আমরা আদালতে আবেদন করেছি। আদালতকে আমরা বলেছি, মিথ্যা মামলায় খালেদা জিয়া জামিনের অপব্যবহার করেননি। তিনি আদালতে নিয়মিত হাজিরা দিয়েছেন। আদালত সন্তুষ্ট হয়ে স্থায়ী জামিন মঞ্জুর করেছেন।’

তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলা করা হয়েছে। ন্যায়বিচার পেলে সব মামলায় তিনি খালাস পেতেন। আর জামিন দিলেও বিএনপি চেয়ারপারসন তার অপব্যবহার করেন না। এ মামলা তার প্রমাণ।’ ২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অবরোধ চলাকালে চৌদ্দগ্রামে যাত্রীবাহী একটি বাসে পেট্রলবোমা হামলায় আটজনের মৃত্যু হয়। ওই ঘটনায় চৌদ্দগ্রামের সাবেক সংসদ সদস্য জামায়াত নেতা ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরকে প্রধান আসামি করে ৫৬ জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত আরও ২০ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। এই মামলায় খালেদা জিয়াসহ বিএনপির শীর্ষস্থানীয় ৬ নেতাকে হুকুমের আসামি করা হয়।

জিয়া এতিমখানা ও জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ১৭ বছরের সাজা নিয়ে কারাগারে থাকা অবস্থায় খালেদা জিয়ার জন্য এ মামলায় জামিনের আবেদন করা হয়েছিল কুমিল্লার বিশেষ আদালতে। ওই আবেদনে ২০১৯ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি কুমিল্লার ওই আদালত খালেদা জিয়ার জামিন নামঞ্জুর করে। এরপর একই বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি জামিন চেয়ে হাই কোর্টে আবেদন করেছিলেন খালেদা জিয়া। পরে ওই বছরের ৬ মার্চ এ মামলায় তাকে রুলসহ ছয় মাসের জামিন দেয় হাইকোর্ট। পরবর্তীতে খালেদা জিয়ার জামিনের মেয়াদ বাড়ানো হয়।

সাহস২৪/এআর/এসটি/এসকে.

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?