কিশোরী পাচার মামলায় খুলনায় স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যুদণ্ড

প্রকাশ : ১৮ মে ২০২২, ১৫:৫৮

সাহস ডেস্ক

খুলনার খানজাহান আলী থানা এলাকার এক কিশোরীকে (১৭) ভারতে পাচার ও যৌনকর্মী হিসেবে বিক্রির অপরাধে দুজনকে মৃত্যুদণ্ড ও প্রত্যেককে এক লাখ টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। এ অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তিন জনকে মামলা থেকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে। বুধবার (১৮ মে) খুলনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব‌্যুনাল-৩ এর বিচারক আ. ছালাম খান এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি হলেন খুলনার খানজাহান আলী থানা এলাকার ভাড়াটিয়া মো. শাহীন শেখ ও তার স্ত্রী আসমা বেগম ওরফে সালমা। তারা দুজনেই পলাতক রয়েছেন।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণী থেকে জানা গেছে, ২০০৯ সালের ১৯ অক্টোবর খানজাহান আলী থানার বিআইটি রোডের আজিজুল ইসলামের মেয়ে সাথীকে ভালো বেতনে চাকরির আশ্বাস দেখিয়ে ভারতে নিয়ে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করে। ঘটনা জানার পর ভুক্তভোগীকে তাঁর পরিবার ফেরত চাইলে আসামিরা ক্ষতিপূরণ বাবদ তাদের কাছে ২০ হাজার টাকা দাবি করে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী সাথীর মা লাকি বেগম বাদী হয়ে খানজাহান আলী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ৬ (১) ধারায় মামলা করেন। মামলা নং- জি.আর. ১৪৬৯/০৯। দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত আজ এই রায় ঘোষণা করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ফরিদ আহমেদ জানান, মামলায় মোট আট জন সাক্ষী দেন। শুনানি শেষে অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় দুইজনকে মৃত‌্যুদণ্ড ও প্রত্যেককে এক লক্ষ টাকা জরিমানা করেছে আদালত। এছাড়া অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তিন জনকে খালাস দেয়া হয়েছে।

সাহস২৪.কম/এএম/এসকে.

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?