x

এইমাত্র

  •  পাঁচজন বিশিষ্ট নারীকে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদক-২০২২ প্রদান করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
  •  ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য রাজস্থানে মন্দিরে পদদলিত হয়ে ৩ জন নিহত হয়েছেন
  •  জ্বালানি তেল ডিজেল, পেট্রল ও অকটেনের মূল্যবৃদ্ধির প্রজ্ঞাপনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট
  •  তাইওয়ানের পাশে সামরিক মহড়া অব্যাহত রাখবে চীন
  •  কওমি মাদ্রাসার শিক্ষা বোর্ডগুলোর সঙ্গে পূর্বনির্ধারিত ১০ আগস্টের বৈঠক স্থগিত করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

অভাবের তারণায় বিক্রি করা শিশুটিকে মায়ের জিম্মায় দিলেন আদালত

প্রকাশ : ২৩ জানুয়ারি ২০২২, ১৯:২৫

সাহস ডেস্ক

অভাবের তারণা ও ভবিষ্যতের কথা ভেবে একটি ধনী পরিবারের কাছে নিজেদের কন্যাসন্তানকে বিক্রি করে দিয়েছিল পিরোজপুরের নেছারাবাদ উপজেলার অভাবী মা কাজল ব্যাপারী ও তার স্বামী পরিমল ব্যাপারী। তবে বিক্রি হওয়া শিশুটিকে উদ্ধারের করে মায়ের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছেন আদালত।

রবিবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে পিরোজপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নেওয়া হলে বিচারক পল্লবেশ কুমার কুন্ডু শিশুটিকে তার মা কাজল ব্যাপারীর জিম্মায় দেন।

বিষয়টি জানিয়ে পিরোজপুর আদালত পুলিশের পরিদর্শক মীর আতাহার আলী বলেন, শিশুটিকে আদালত তার মায়ের জিম্মায় দেওয়ার আদেশ দেন। দুপুরে শিশুটিকে তার মা বাড়ি নিয়ে যান।

শিশুটির মা কাজল ব্যাপারী বলেন, আমার স্বামী অভাবে থাকায় ও মেয়ের সুন্দর ভবিষ্যতের কথা ভেবে ধনী একটি পরিবারকে শিশুটিকে দত্তক দিয়েছিলাম। আমি তো মা। মায়ের মন সন্তানের জন্য ছটফট করে। সন্তানকে ফিরে পেয়ে আমি খুশি।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, পিরোজপুরের নেছারাবাদ উপজেলার দুর্গাকাঠি গ্রামের পরিমল ব্যাপারীর স্ত্রী কাজল ব্যাপারী এক মাস আগে একটি কন্যাসন্তান জন্ম দেন। শিশুটির জন্মের পর স্থানীয় বিজন হালদার ও রনজিত কুমার নামের দুই ব্যক্তি পরিমল ব্যাপারীকে প্রভাবিত করে শিশুটিকে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকায় এক দম্পতির কাছে বিক্রি করে দেন। পরে বিজন হালদার পরিমলকে শুধু ১০ হাজার টাকা দিয়ে বাকি টাকা আত্মসাৎ করেন। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে পুলিশ গত বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকা থেকে ওই দম্পতির কাছ থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করে।

রবিবার সকালে থানা-পুলিশ শিশুটিকে মা’সহ পিরোজপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে। এ সময় বিচারক শিশুটিকে মায়ের জিম্মায় দেওয়ার নির্দেশ দেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?