‘একই ডিজাইনে নির্মিত হচ্ছে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কবর’

প্রকাশ : ০৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:০৩

সাহস ডেস্ক

কুমিল্লা জেলার  মুরাদনগর, চৌদ্দগ্রাম,  কুমিল্লা সদর দক্ষিণ এবং বুড়িচং উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের উদ্বধোনকালে দেশের বধ্যভূমি সংরক্ষণ এবং সকল বীর মুক্তিযোদ্ধার কবর একই ডিজাইনে নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। 

আজ মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলা থেকে নবনির্মিত চারটি মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এ কথা জানিয়েছেন।

মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় প্রতিটি প্রায় ২ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে এসব কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হয়। 

কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা-৩ আসনের সংসদ সদস্য ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন, কুমিল্লা-৫ আসনের সংসদ সদস্য আবুল হাসেম খাঁন, শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ফারুকসহ মুরাদনগর উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতারা। এছাড়াও ভার্চুয়ালি চৌদ্দগ্রাম, কুমিল্লা সদর দক্ষিণ এবং বুড়িচং উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা নেতৃবৃন্দ।

মন্ত্রী এ সময় বর্তমান সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরেন এবং  নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ায় আত্মনিয়োগ করতে আহ্বান জানান।

উদ্বোধন শেষে এক মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশে মোজাম্মেল বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার বীর নিবাস নির্মাণ প্রকল্প অনুমোদন করেছেন। প্রথমে ১৪ হাজার থাকলেও পরে প্রধানমন্ত্রী এ সংখ্যা ৩০ হাজারে উন্নীত করেন। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিনামূল্যে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন বিশেষায়িত হাসপাতাল এবং জেলা-উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।’

উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় প্রায় এগারশ’ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রতিটি উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ৪০০টি উপজেলায় কমপ্লেক্সের নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে।

সাহস২৪.কম/এসটি/এমআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?