x

এইমাত্র

  •  আরও এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউনের সুপারিশ
  •  হাসপাতালে ভর্তি করোনা রোগীরা দ্রুত মারা যাচ্ছেন: আইইডিসিআর
  •  সাতদিনের রিমান্ডে হেফাজত নেতা মামুনুল হক
  •  লকডাউনের মেয়াদ আরও ৭ দিন বাড়তে পারে

চিরনিদ্রায় শায়িত এইচ টি ইমাম

প্রকাশ : ০৫ মার্চ ২০২১, ০৩:২১

সাহস ডেস্ক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমামকে (হোসেন তৌফিক ইমাম) ঢাকার বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। বুধবার দিবাগত রাতে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান ৮২ বছর বয়সী এইচ টি ইমাম।

বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) সন্ধ্যা ৬টায় তাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়।

আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, ইমাম কিডনিজনিত জটিলতায় ভুগছিলেন এবং দু'সপ্তাহ আগে তাকে সিএমএইচে ভর্তি করা হয়। মঙ্গলবার থেকে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে।

রাত সোয়া ১টার দিকে চিকিৎসকরা এইচ টি ইমামকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী বিপ্লব বড়ুয়া জানান, তার মরদেহ সকাল সাড়ে ৯টায় হেলিকপ্টারযোগে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় নেয়া হয়। বেলা ১১টায় উল্লাপাড়া আকবর আলী সরকারি কলেজ মাঠে তার প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

তার দ্বিতীয় জানাজা আসর নামাজের পর ঢাকার ‍গুলশান আজাদ মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়।

বেলা ১টায় তার মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ২ ঘণ্টার জন্য রাখা হয়। বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে ইমামের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়।

মুক্তিযুদ্ধের সময় প্রবাসী সরকারের মন্ত্রিপরিষদ সচিবের দায়িত্ব পালন করা এইচ টি ইমাম স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম মন্ত্রিপরিষদ সচিবও হন।

১৯৭৫ সালের ২৬ আগস্ট পর্যন্ত তিনি মন্ত্রিপরিষদের সচিবের দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ১৯৭৮ থেকে ১৯৮৪ পর্যন্ত সাভারের লোকপ্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রকল্প পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন। পরে তিনি যোগাযোগ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সচিব হন।

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় যাওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে উপদেষ্টার দায়িত্ব দেন। প্রথমে তিনি জনপ্রশাসন বিষয়ক উপদেষ্টা ছিলেন। ২০১৪ সাল থেকে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

বিগত তিনটি সাধারণ নির্বাচনে ২০০৮, ২০১৪ এবং ২০১৮ সালে ইমাম আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যানের দায়িত্বে ছিলেন।

এইচ টি ইমামের জন্ম ১৯৩৯ সালে। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। পরবর্তীতে তিনি লন্ডন স্কুল অফ ইকোনমিকস থেকে উন্নয়ন প্রশাসনে ডিগ্রি লাভ করেন।

রাষ্ট্রপতির শোক

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এবং আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর অন্যতম সদস্য এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ।

এক শোকবার্তায় রাষ্ট্রপতি বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে এইচ টি ইমামের ভূমিকা ছিল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি স্বাধীনতা ও মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিকাশে আজীবন কাজ করে গেছেন।

তিনি বলেন, একজন সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে সদ্য স্বাধীন দেশে সরকার পরিচালনায় তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। জাতীয় নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনায়ও তিনি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। তার মৃত্যুতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একজন নিবেদিতপ্রাণ নেতাকে হারাল।’

রাষ্ট্রপতি মরহুম এইচ টি ইমামের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

প্রধানমন্ত্রীর শোক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার রাজনৈতিক উপদেষ্টা এবং আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর অন্যতম সদস্য এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী এক শোকবার্তায় মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

এছাড়া এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস, কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী) সিপিবির (এম) কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড এম এ সামাদ গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত