পায়ে হেঁঁটে ১৫০ কিলোমিটার পথ পাড়ি

প্রকাশ : ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৫:৫০

বাংলাদেশ নেভাল একাডেমি হতে ১৫০ কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে দীঘিনালায় এসেছেন নৌ রোভার স্কাউট এর চারজন সদস্য।
 
গত ২৫ অক্টোবর সকালে তারা বাংলাদেশ নেভাল একাডেমি হতে দীঘিনালার উদ্দেশ্যে পায়ে হেঁটে রওনা করেন। বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) তারা দীঘিনালায় পৌঁছেছেন। পরিভ্রমণে আসা রোভার সদস্যরা হলেন চট্টগ্রাম জেলা নৌ স্কাউটস এর রোভার মেট নোবেল দাশ, সহকারি রোভার মেট মো. বেলাল হোসেন, নাজমুল হাসান সৈকত ও কৌশিক মিত্র।
 
দীঘিনালায় তাদের স্বাগত জানান খাগড়াছড়ি জেলা রোভারের অর্থ সম্পাদক ও দীঘিনালা সরকারি কলেজের প্রভাষক দুলাল হোসেন, রোভার স্কাউট লিডার দিদারুল আলম রাফি এবং দীঘিনালা সরকারি কলেজ রোভার স্কাউট গ্রুপের সদস্যরা।
 
এসময় তারা দীঘিনালা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোহাম্মদ কাশেমের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন এবং ভ্রমনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে অবহিত করেন।
 
রোভার সদস্যরা জানান ইভটিজিং, বাল্য বিবাহ, নিয়মিত মাস্ক পরিধান, হাত ধোয়ার অভ্যেস ও করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতন করতে তাদের এই পায়ে হাঁটার অভিযান।
 
দীঘিনালা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোহাম্মদ কাশেম বলেন, রোভার স্কাউট এর সকল কার্যক্রম প্রশংসনীয়। বিশেষ করে সচেতনামূলক সবধরনের কাজে রোভার স্কাউটস সদস্যরা নিবেদিত প্রাণ হিসেবে কাজ করছে।
 
পরিভ্রমণে আসা রোভার মেট নোবেল দাশ বলেন, প্রেসিডেন্ট এওয়ার্ড প্রাপ্তির লক্ষ্যে পরিভ্রমণকারী ব্যাজ অর্জনের জন্য আমরা চট্টগ্রাম নেভাল একাডেমি থেকে পায়ে হেঁটে দীঘিনালা এসেছি। এছাড়া আমরা সচেতনামূলক কার্যক্রমগুলোকে গুরুত্ব দিয়ে প্রচার করেছি এবং মাস্ক ও স্যানিটাইজার বিতরণ করেছি।
 
খাগড়াছড়ি জেলা রোভারের অর্থ সম্পাদক দুলাল হোসেন বলেন, খাগড়াছড়ি জেলা সহ দেশের সব অঞ্চলের রোভার সদস্যরা মানব সেবায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় কাজেও রোভার সদস্যরা নিরলসভাবে সহযোগিতা করে আসছে। এছাড়া রোভার সদস্যরা নিজেদের দক্ষতা বৃদ্ধির পাশাপাশি সামাজিক বিভিন্ন কাজে ভূমিকা রাখছে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?