x

এইমাত্র

  •  গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় নতুন সংক্রমিত ২৬৮৬ জন, মৃত ৩০ জন
  •  সাহেদকে ‘সমাজসেবক’ ভাবতেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের কর্মকর্তারা!
  •  মহামারি করোনাভাইরাসে বিশ্বব্যাপী মৃত্যু ৫ লাখ ৬৩ হাজার, আক্রান্ত ১ কোটি ২৬ লাখেরও বেশি
  •  মায়ের কবরেই সমাহিত হলেন সাহারা খাতুন

মানবপাচারকারী চক্রকে দ্রুত শাস্তির আওতায় আনার দাবি ব্র্যাকের

প্রকাশ : ২৯ মে ২০২০, ১৬:২৯

সাহস ডেস্ক

ভূমধ্যসাগরীয় দেশ লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিসহ ৩০ অভিবাসী শ্রমিককে গুলি করে হত্যা করেছে একটি মানবপাচারকারী চক্রের সদস্যরা। নিহতদের ২৬ জন বাংলাদেশি ও বাকি চারজন আফ্রিকান। এ হত্যার ঘটনায় জড়িত মানবপাচারকারী চক্রকে দ্রুত গ্রেপ্তার ও শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাক।

শুক্রবার (২৯ মে) ব্র্যাকের অভিবাসন কর্মসূচি প্রধান শরিফুল হাসান সাংবাদিকদের দেয়া এক বিবৃতিতে এ দাবী জানান।

প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, নিয়ন্ত্রণ করা (আধিপত্য) নিয়ে লিবিয়ায় গৃহযুদ্ধ চলছে। এটি তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়। কিন্তু এই সুযোগ নিয়ে গত প্রায় এক দশক ধরে মানবপাচারকারী চক্র সেখানে সক্রিয়। তারা ইউরোপে লোক পাঠানোর নামে একজনের কাছ থেকে গড়ে তিন থেকে চার লাখ টাকা নিচ্ছে। ভূমধ্যসাগরের কাছে লিবিয়ার বিভিন্ন সীমান্তে ক্যাম্প করে তারা লোকজনকে জিম্মি করে ছোট ছোট নৌকায় করে ইউরোপে পাঠাচ্ছে।

শরিফুল হাসান বলেন, প্রায়ই সেখানে দুর্ঘটনায় বাংলাদেশিরা প্রাণ হারাচ্ছেন। সর্বশেষ ২৬ জন নিহতের ঘটনায় বেঁচে যাওয়া একজন বাংলাদেশি ঘটনার যে বিবরণ দিয়েছেন এবং গণমাধ্যমের খবরেও সেসব কথা উঠে এসেছে। ৩৭ জন বাংলাদেশিসহ ৪০-৪২ জন মানুষকে জিম্মি করে মুক্তিপণ আদায়ের জন্য জড়ো করেছিল মানবপাচারকারী চক্র। এই চক্রকে গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনার পাশাপাশি এর সঙ্গে জড়িতদের সবাইকে খুঁজে বের করতে বিভিন্ন দেশকে প্রয়োজনে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

ইউএনএইচসিআর-এর তথ্য অনুযায়ী, ২০১৪ থেকে এ বছরের এপ্রিল পর্যন্ত প্রায় সাড়ে বিশ লাখ মানুষ ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়েছেন। এভাবে সাগরপথ পাড়ি দিতে গিয়ে ১৯ হাজারেরও বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন, যার মধ্যে অনেক বাংলাদেশি রয়েছেন।

ভূমধ্যসাগর দিয়ে যত মানুষ ইউরোপে প্রবেশ করার চেষ্টা করে, সেই তালিকার শীর্ষ ১০-এ আছে বাংলাদেশ। এ বছরের জানুয়ারি থেকে এপ্রিলেই শুধু ৬৯৩ জন বাংলাদেশি এভাবে ইউরোপে প্রবেশ করতে গিয়ে আটক হয়েছেন।

আফগানিস্তান, সিরিয়া, আলজেরিয়া, মরক্কো, মালি, আইভরি কোস্ট, ইরাক, গায়েনা ও সুদানের মতো দেশের সঙ্গে বাংলাদেশিদের এভাবে ইউরোপ যাত্রা দেশের ভাবমূর্তিকেও সংকটে ফেলে।

শরিফুল হাসান বলেন, বাংলাদেশ থেকে লিবিয়ায় কর্মী পাঠানো গত পাঁচ বছর ধরেই বন্ধ। তারপরও কী করে এত লোক বাংলাদেশ থেকে লিবিয়া যাচ্ছে, সেই ঘটনার তদন্ত করা উচিত। মূলত বাংলাদেশের সিলেট, সুনামগঞ্জ, নোয়াখালী, মাদারীপুর, শরীয়তপুরসহ সুনির্দিষ্ট কিছু এলাকার লোকজন এভাবে ইউরোপে যায়। কাজেই এই এলাকার স্থানীয় দালাল ও মানবপাচার চক্রকে চিহ্নিত করতে হবে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে বাংলাদেশকেই।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত